‘হলি গ্রেইল’ খুঁজে পেয়েছেন দুই স্প্যানিশ গবেষক! (ছবি ব্লগ)

ড্যান ব্রাউনের ‘দি ভিঞ্চি কোড’  বইটি যারা পড়েছেন তাদেরকে নিশ্চই বলতে হবে না ” হলি গ্রেইল ” কি জিনিষ – এটা যিশু খ্রিষ্টের ব্যবহৃত পেয়ালা। ‘লাস্ট সাপার’ – অর্থাৎ সবচেয়ে কাছের বারোজন শিষ্যকে নিয়ে শেষবারের মতো যে আহার করেছিলেন, তাতে এই পেয়ালাতেই চুমুক দিয়েছিলেন এই ধর্মপ্রচারক। এরপর এক শিষ্যের বিশ্বাসঘাতকতায় তিনি ধরা পড়ে যান রোমানদের হাতে। পরবর্তীতে তাকে ক্রুশবিদ্ধ করা হয়। তারপর থেকে এই ধর্মগুরুর শেষ চুমুক দেয়া পেয়ালাটিকে হন্যে হয়ে খুঁজে বেড়িয়েছেন ইতিহাস অনুরাগী গবেষকের দল, কিন্তু এর আর কোনো খোজ এতদিন পর্যন্ত পাওয়া যায় নি কোথাও।

হলি গ্রেইল নিয়ে অসংখ্য বই আছে বাজারে, হলিউডের অসংখ্য মুভি আছে, আছে একগাদা কল্পকাহিনী আর কন্সপিরেসি থিওরি। “দি ভিঞ্চি কোড” বইতে এই গ্রেইলকে ব্যাখ্যা করা হয়েছে যিশুর কথিত স্ত্রী মারি ম্যাগডালিনের বংশধারাকে। প্রত্যেকেই নিজের মতো করে ব্যাখ্যা করেছেন একে। তবে সম্প্রতি দুই স্প্যানিশ গবেষক নতুন করে উসকে দিয়েছেন গ্রেইল বিতর্ক। নতুন কোনো কন্সপিরেসি থিওরির বই নয়, বরং তাদের মতে গ্রেইলের ইতিহাস জেনেছেন তো বটেই, সেই সাথে বহু আকাংখিত সে পেয়ালাটি খুঁজেও বের করে ফেলেছেন তারা!

মার্গারিটা টরেস আর জোসে অর্তেগা নামের এই দুই গবেষকের মতে, দুই হাজার বছরের পুরনো অতি আরাধ্য সেই পেয়ালাটি বর্তমানে আছে স্পেনের একটি চার্চে। বিভিন্ন হাত ঘুরে মধ্যযুগের কোনো সময়ে সেখানে পৌঁছেছিলো পেয়ালাটি।

এই দুজনের গবেষণার বিষয়বস্তু ছিলো মুসলিম শাসনের সময় স্পেনে আসা বিভিন্ন প্রত্নতাত্ত্বিক উপাদান। গবেষণার এক পর্যায়ে তাদের হাতে দুইটি মিশরীয় পার্চমেন্ট এসে পৌছায়। সেটা পাঠোদ্ধার করে দেখা যায়, তৎকালীন মুসলিম শাসকের পৃষ্ঠপোষকতায় একটি পেয়ালাকে জেরুজালেম থেকে কিভাবে মিশরের কায়রোতে এনেছিলো একদল অভিযাত্রী। পেয়ালাটিকে নিরাপদে কায়রো আনার জন্যে একাধিকবার যাত্রাপথ পরিবর্তন করেছিলো তারা।

পরবর্তীতে পেয়ালাটিকে স্পেনের আমিরকে উপহার দিয়েছিলো মিশর। পরবর্তীতে স্পেনে মুসলিমদের পতন ঘটলেও পেয়ালাটির স্থান হয় সেখানকার এক চার্চে।

পেয়ালাটিকে পরীক্ষা করে দেখা গেছে সেটি বানানো হয়েছিলো খৃষ্টপূর্ব ২০০ থেকে ১০০   খ্রিষ্টাব্দের কোনো এক সময়ে। এটা সত্য আরও বিস্তারিত গবেষণা ছাড়া এটাকে নিশ্চিতভাবে গ্রেইলের স্বীকৃতি দেয়া যাচ্ছে না। তবে ইতিহাসে এই প্রথমবারের মতো একটি সত্যিকারের পেয়ালা দাবী করছে হলি গ্রেইলের মর্যাদা।

তাই নতুন কোনো থিওরি না আসা পর্যন্ত আমরা এই পেয়ালাটির দিকে সমীহভরে একটা নজর দিতেই পারি, নয় কি!

holy grail

(ছবি এবং খবরের সূত্র বিদেশি সংবাদমাধ্যম)

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s