ফেসবুক চেইন মেসেজ সমগ্র (Post this message to 1000 people..)

উমর

স্কুলে থাকতে পাওয়া সেই অদ্ভুত চিঠিগুলার কথা মনে আছে আপনাদের? ঐযে যেসব চিঠিতে লেখা থাকতো, এই চিঠিটা যার হাতে পৌছাবে সে যেন হুবহু কপি করে দশজনের মাঝে বিলি করে দেয় না হলে তার জন্য অপেক্ষা করছে একশো বছরের দুর্ভাগ্য (বা ঐ জাতীয় কিছু)। এই চিঠি পড়ার পর আমরা কি করতাম, মনে আছে? রীতিমতো খাওয়া, ঘুম, বিকালের খেলা, সন্ধ্যার হোমওয়ার্ক…সব হারাম করে চিঠি কপি করতে লেগে যেতাম। সেগুলো যথাস্থানে বিলি করার পরও মনের ভেতর ভয় কাজ করতো, সব কিছু ঠিকমতো করেছি তো?

স্কুলের গন্ডী পেরোনোর পর ঐসব চিঠির দেখা আর পাইনি, যদি পেতাম তাহলে নিশ্চিতভাবে সেটার গন্তব্য হতো পাবলিক টয়লেটের কমোড। তবে আমাদের সেই বয়সের সরলতাকে পুঁজি করে যারা তামাশা করতো তারা কিন্তু এখনো একই কাজ করে যাচ্ছে ফেসবুকে। স্ট্যাটাস আর ওয়ালপোস্টে চেইন মেসেজ আর স্প্যাম লিংক পাঠিয়ে মুহুর্তের ভেতর বিভ্রান্ত করছে লক্ষ লক্ষ ইউজারকে। তাই ভাবলাম এই বিষয়টা নিয়ে একটা পোস্ট দিলে অনেকের-ই উপকার হবে 🙂

বিখ্যাত কিছু চেইন মেসেজ প্যাটার্ন:

ফেসবুকে এখন এত আজব আজব টাইপের চেইন মেসেজ বিলি হচ্ছে প্রতিদিন যে তাদের সবগুলাকে একসাথে ক্যাটাগরাইজ করা একেবারেই অসম্ভব। তাই সবচেয়ে বেশী প্রচার হওয়া তিনটা মেসেজ স্ন্যাপশট সহ দিয়ে দিলাম, বিশেষ করে ফেসবুকের নতুন ইউজাররা এইসব মেসেজগুলার ব্যাপারে সতর্ক থাকবেন।

❖ ফেসবুক:

মজার ব্যাপার কি জানেন? ফেসবুকের ইতিহাসে যত চেইন মেসেজ দেওয়া নেওয়া হয়েছে, তার মধ্যে সর্বাধিক প্রচারিত মেসেজটা সার্কুলেট করা হয়েছে স্বয়ং ফেসবুকের মামেই! তার নিচে আবার লাগিয়ে দেয়া হয়েছে ফেসবুকের কর্ণাধার মার্ক জুকারবার্গের সাইন! বিশ্বাস হয়? ২০০৭ থেকে চালান হতে থাকা এই মেসেজের মর্মার্থ হচ্ছে এরকম: ফেসবুক দিন দিন জনবহুল হয়ে যাচ্ছে তাই সার্ভার আর এতো ফেসবুক প্রোফাইল ধারন করতে পারছে না। তাই কতৃপক্ষ ঠিক করেছে যে তারা শুধু একটিভ মেম্বারদের প্রোফাইল গুলোই রাখবে, বাকীগুলা মুছে দিবে। ভাবছেন কারা সেই একটিভ মেম্বার? হুমম…যারা এই মেসেজটি হুবহু কপি করে অন্য বন্ধুদের কাছে পাঠিয়ে দিবে, তারাই হলো একটিভ মেম্বার। এখন বলেন তো আপনি এই মেসেজ পেলে কি করবেন? নিজের সাধের আইডিটা কোরবানী দিবেন? না সামান্য এই মেসেজটা বন্ধুদের কাছে পাঠিয়ে নিজেকে আর অন্যদের উদ্ধার করবেন? মেসেজটি পাঠিয়ে দিবেন, তাইনা? এই হলো সেই বিখ্যাত মেসেজটা,

ফেসবুকের সর্বাধিক প্রচারিত চেইন মেসেজটা প্রচারিত হয়েছে ফেসবুকর নামেই!

এছাড়া ফেসবুক নিয়ে আরও যে সব মেসেজ আসে, তার মধ্যে বেশী চলে প্রোফাইল আপগ্রেড করার বিষয়ক মেসেজ (সেখানে বলা থাকে এত তারিখের পর থেকে আর কেউ ফ্রি ফেসবুক ইউজ করতে পারবে না), বিভিন্ন ভাইরাসের খবর যেমন অমুক নামের ফেসবুক আইডিকে এ্যড করবেন না, অথবা অমুক এ্যাপ্লিকেশন চালাবেন না…এইসব-ই ভুয়া খবর। এই যেমন এই মেসেজটা আমি পেয়েছিলাম ২০০৭ এর শেষের দিকে, তখন আমি ফেসবুকে একেবারেই নতুন:

এছাড়া এরকম কিছু স্ট্যাটাস-ও চোখে পড়েছে যেখানে আজব এক ভাইরাসের কথা বলা হয়েছে, WARNING!!!!! IF YOU SEE A STATUS APPEAR ON YOUR WALL ABOUT A STORY OF A GIRL WHO KILLED HERSELF BECAUSE OF SOMETHING HER FATHER WROTE ON HER FACEBOOK WALL!!! DO NOT OPEN IT !!!! IT IS A VIRUS AND WILL RELEASE A TOJAN VIRUS IN TO YOUR COMPUTOR. PLEASE CUT AND PASTE THIS TO YOUR WALL!!!!

একটা বিষয় মাথায় রাখবেন বিভিন্ন তথ্য জানানোর জন্য ফেসবুক অফিসিয়ালি তার ইউজারদের সাথে কয়েকটা উপায়ে যোগাযোগ করে। কখনো নিউজ ফিডের উপরে ছোট বক্সের মাধ্যমে, অথবা হোয়াটস নিউ ট্যাব, বিভিন্ন ব্লগ, অফিসিয়াল ফেসবুক পেজ এইসবের ভেতর নিয়মিতভাবে নতুন ফিচার আর নিরাপত্তামূলক আপডেট দেয়া হয়। (বিস্তারিত এখানে) তাই নিশ্চিত থাকতে পারেন, কোনও বিপদে পড়ে ফেসবুক কখনো আপনার ওয়ালে কিছু লিখবে না, উটকো অ্যাপ্লিকেশন ব্যাবহার করতে বলবে না, অথবা বন্ধু মারফত মেসেজও পাঠাবে না। আর ফেসবুকের কাছে আপনার সব কর্মকান্ডেরই রেকর্ড থাকে, তাই কোনও আইডি সচল আছে নাকি নাই – সেটা জানার জন্য আপনার ইনবক্সে মেসেজ পাঠানোর প্রশ্নই আসে না, এটা একেবারেই অবান্তর কথা।

❖ মানবিক সাহায্যের আবেদন:

নিচের মেসেজগুলা পড়ে দেখেন, প্রথমটায় এ্যামি ব্রুস নামের একটি শিশুর কথা বলা হয়েছে যার বয়স মাত্র সাত বছর, সে ব্রেন টিউমান আর লিভার ক্যানসারে ভুগছে। পরেরজন ছয় বছরের একটা ছেলে, যাকে তার সৎ বাবা গুলি করেছে এবং বর্তমানে সে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছে। তাদের দুইজনের জন্যেই অর্থ সাহায্য লাগবে। কিন্তু কিভাবে দেয়া হবে এই সাহায্য? আমরা ব্লগে যেসব মানবিক সাহায্যের আবেদন দেখি সেখানে সবকিছুর স্বচ্ছ আর বিস্তারিত বিবরন থাকে, যেমন যোগাযোগের ঠিকানা, ফোন নাম্বার, ব্যাংক একাউন্ট…এইসব। কিন্তু এখানে সেরকম কিছুর-ই উল্লেখ নাই। এ্যামির মেসেজে বলা হচ্ছে “মেক এ উইশ ফাউন্ডেশন” নাকি প্রত্যেকবার এই মেসেজ পাঠানোর জন্য সাত ডলার করে অনুদান দেবে। আর ঐ দুর্ভাগা ছেলেটাকে সাহায্য করবে ফেসবুকের “কোম্পানী” গুলো, প্রতি ওয়াল পোস্টের জন্য তারা অনুদান দিচ্ছে ৪৫ সেন্ট করে।

আর তারপরের মেসেজটা:

এবার বলি আসল কথা, সৌভাগ্য বলেন আর দুর্ভাগ্য বলেন আমরা এমন পৃথিবীতে বাস করি না যেখানে একটা প্রতিষ্ঠান কোন মেইল কতবার কোথায় পাঠানো হলো সেটার উপর ভিত্তি করে অর্থ সাহায্য পাঠাতে সক্ষম। ভাবছেন কেন?? কারণ বিশেষ কোনও মেইল কে কতবার পাঠিয়েছে, অথবা কে তার বন্ধুদের ওয়ালে কি পোস্ট করেছে এটি ঐ প্রেরক আর প্রাপক ছাড়া আর কারও জানার সুযোগ নাই। এর নাম হলো প্রাইভেসি 😀 তাই এই ধরনের হৃদয়স্পর্শী চেইন মেসেজ আপনার কাছে আসলে সেগুলো মুছে ফেলাই শ্রেয় হবে। কারন এর মূল উদ্দেশ্য কাউকে সাহায্য করা না, বরং আপনাকে বোকা বানানো।

❖ ভিডিও লিঙ্ক:

কিছুদিন ধরে আরেক ধরনের স্প্যাম ছড়িয়ে পড়ছে ফেসবুকে, সেটা হলো ভিডিও ক্লিপ স্প্যাম। মনে করেন আপনার ফেসবুকে একদিন নোটিফিকেশন আসলো যে, অমুক আপনার ওয়ালে একটা ভিডিও পোস্ট করেছে। কৌতুহল বশে আপনি সেই লিঙ্কে ক্লিক করলেন, আর সেটা তখন ভিডিও দেখানোর কথা বলে একটা ভাইরাস অ্যাপ্লিকেশন পাঠিয়ে আপনাকে এপ্রুভ করতে বলবে।  যেই আপনি সেটা ওকে করবেন, সাথে সাথে ঐ লিঙ্কটা আপনার নামে সব বন্ধুদের ওয়ালে শেয়ার হয়ে যাবে! কি বিব্রতকর একটা পরিস্থিতি… 😐

আর এত কিছু করার পরও ঐ ভিডিওটা আপনি কিন্তু আপনার অদেখাই থেকে যাবে। কারণ এটা নিছকই একটা স্প্যাম মেসেজ, যার একমাত্র উদ্দেশ্য ছিলো বন্ধুদের কাছে আপনাকে হেঁয় করা, বাস্তবে এরকম কোনও ভিডিওর অস্তিত্বই নেই!

অন্য পাতায়:

কিভাবে বুঝবেন যে এটা একটা চেইন মেসেজ?

কি করবেন যদি এই ধরনের মেসেজ আসে?

এটা আসলে তিন পাতার পোস্টের প্রথম পাতা মাত্র, পরের পাতা গুলাতে চেইন মেসেজের ব্যাপারে আরও কিছু বিষয় বিস্তারিত ভাবে বলা হয়েছে, আশা করি মিস করবেন না 🙂

Advertisements

3 comments

  1. স্প্যামগুলোর খপ্পরে না পড়লেও এই চেইন মেসেজগুলোর খপ্পরে পড়েছিলাম। 😦

    তবে ইদানীং আরেকটা বিষয় খেয়াল করেছ কিনা জানিনা, মোবাইলেও এই ধরনের চেইন মেসেজের উৎপাত দেখা যাচ্ছে! আমার কাছে কালেমা, দোয়া, আল্লাহ’র নাম সম্বলিত বেশ কয়েকটি এসএমএস এসেছে যে, যেখানে বলা হচ্ছে- যে ব্যক্তি এই এসএমএসগুলো ১০ জন/ ১৫ জনের কাছে সেন্ড করবে সে ৪৮ ঘন্টার মধ্যে ভাল সংবাদ পাবে আর যে সেন্ড করবেনা আগামী ২ বছর/ ৫ বছর/ ১০ বছর তাকে দুর্ভোগ পোহাতে হবে।

    তবে আমি বরাবরের মত ইগনোর করে গেছি।

    • প্রথম প্রথম স্প্যাম লিঙ্ক পেলে কনফিউজড হতাম, এখন আর হই না। কিন্তু চেইন
      মেসেজের বিড়ম্বনায় এখনো পড়তে হয় :-\ সম্ভব হলে আপনার কাছে যেসব মেসেজ আছে
      সেগুলা এখানে পেস্ট করে দিয়েন, তাহলে অন্যদের চিনতে সুবিধা হবে 🙂

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s