মুক্তিযুদ্ধ: অন্ধ আবেগ বনাম সত্য ইতিহাস

উমর

কিছু কিছু বিষয় আছে যেগুলো নিয়ে লিখতে বা কিছু বলতে আমি আর রুচিবোধ করি না। তার মধ্যে অন্যতম হচ্ছে মুক্তিযুদ্ধ। বিশেষ করে বিগত কয়েকদিনের পত্রপত্রিকায় যে ভাষায় এক পক্ষ আরেক পক্ষকে আক্রমন করে চলেছেন তা পড়লে যে কারো মুখ তিতা হতে বাধ্য। তারপরও সংগ্রামের মার্চ এসে এখন চলে যাচ্ছে, কিছু না কিছু তো লিখতেই হয়। বিশেষ করে সারাটা মাস মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস নিয়ে আলোচনা শুনতে শুনতে আমার একটি ঘটনা মনে পড়ে গেছে।

যুদ্ধের সময় সীমান্তবর্তী গ্রামের এই গল্পটি প্রায় দুই বছর আগে শুনেছিলাম আমার শ্রদ্ধাস্পদ এক শিক্ষকের কাছে। যার সারমর্ম ছিলো এরকম, গ্রামের পাক বাহিনী ও বিহারীদের অবস্থানের তথ্য নেয়ার জন্য মুক্তিবাহিনীর এক চরকে পাঠানো হয়েছিলো। বিকলাংগ হওয়ার কারনে পাকসেনা বা বিহারীদের কারোরই তাকে ‘মুক্তি’ হিসেবে সন্দেহ করার কোনো অবকাশ ছিলো না। পথিমধ্যে একটা গরুর গাড়ীতে কিছু বিহারী যাচ্ছিলেন গ্রামের ভেতরে, সে তখন নিজের অক্ষমতা দেখিয়ে তাদের অনুরোধ করে তাকেও সঙ্গী করে গ্রামের বাজার পর্যন্ত নিয়ে যেতে। প্রখর রোদের মধ্যে পঙ্গু মানুষকে দেখে দয়াপরবশ হয়ে বিহারীরা তাকে গাড়ীতে তুলে নেয়।

পথিমধ্যে তারা নিজেদের ভেতর বিভিন্ন গোপন সংবাদ নিয়ে আলোচনা করছিলো। সঙ্গে থাকা পরোটা আর হালুয়া সহযোগে আলাপরত বিহারীরা কষ্মিনকালেও কল্পনা করেনি যে তাদের সাথেই মুক্তিবাহিনীর একজন চর গ্রামে যাচ্ছে। গ্রামে পৌছে বিকলাংগ সেই চরকে বাজারে নামিয়ে দিয়ে চলে যায় তারা। কিন্তু চরের তো আর এই গ্রামে কোনো কাজ নেই! যা জানার মোটামুটি সবই সে জেনে ফেলেছে গাড়ীর ভেতরে বসেই।

সন্ধ্যায় ক্যাম্পে ফিরে এসে যখন সে হাসি মুখে এই পরোটা হালুয়ার কাহিনী বলছে ঠিক তখনই স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রে প্রচারিত হচ্ছে মুক্তিবাহিনীর দ্বারা বিহারী বিতাড়ন আর সেই গ্রামটি দখলের খবর। সবাই হতভম্ভ হয়ে শুনছে, অপারেশনেরই শুরু হলো না এদিকে রেডিওতে গ্রাম বিজয়ের খবর প্রচার করা হচ্ছে ! তখন নিঃশব্দ নিরবতার ভেঙ্গে সেই চর দাঁড়িয়ে সহযোদ্ধাদের বলেছিলো, “স্বাধীন বাংলা বেতার যখন বলেছে গ্রামটি শত্রুমুক্ত হয়েছে, তার মানে গ্রামটি শত্রুমুক্ত। আমার দেয়া কোনো তথ্য যদি এর বিপরীত হয়, তাহলে সেটা মিথ্যা…”

তখনকার মানুষের স্বাধীনতার স্পৃহা আর একাত্বতা বোঝানোর জন্যই গল্পটি বলেছিলেন আমার সেই শিক্ষক, কিন্তু সব কিছু নিয়েই প্রশ্ন তোলার বাজে একটা স্বভাব আছে আমার, যে কারনেই মূলত এই সকল বিতর্কে ইদানিং নিরব থাকাই শ্রেয় মনে করি। প্রশ্ন করলাম, “…এর মাধ্যমে অন্যান্য এলাকার মুক্তিসংগ্রামীরা উদ্বুদ্ধ হয়েছেন সত্যি, কিন্তু ইতিহাসের পাতায় তো তাহলে সত্যিকারের বিজয়ের একদিন আগেই শত্রুমুক্ত হওয়ার কথা লেখা আছে। এরকম যে আরও কত জায়গায় হয়েছে কে জানে, সেক্ষেত্রে আমাদের জানা ইতিহাসকে কি পুরোপুরি সত্য বলা যাতে পারে…?”

এই প্রশ্নের জবাব আমার শিক্ষক দিয়েছিলেন এভাবে, “…যুদ্ধ কখনো শুধু অস্ত্র দিয়ে জেতা যায় না। এর জন্য অনেক রকম কৌশল অবলম্বন করতে হয়। একাত্তরে স্বাধীন বাংলা বেতার ছিলো নিরস্ত্র সেই প্রচার যুদ্ধের দায়িত্বে। এখন সাদা চোখে একে অসত্য প্রচার মনে হচ্ছে আমাদের, কিন্তু সেই সময় মুক্তিকামী জনতার কাছে এটাই ছিলো ধ্রুব সত্য, যার একমাত্র উদ্দেশ্য ছিলো মুক্তিযোদ্ধাদের উদ্বুদ্ধ করা আর শত্রুপক্ষকে দুর্বল করা। সেই সময় ‘মুক্তি’ শব্দটি শুনলে পাকবাহিনী যে ভয়ে এলোপাতারী গুলি শুরু করে দিতো, তার পেছনে এই সব উড়ো খবরের বিশেষ ভূমিকা ছিলো।”

“…মানুষের কাছে এটা যত বড় সত্যই হোক, বা যত চমকপ্রদ কৌশলই হোক, ইতিহাসের মানদন্ডে তা তো নির্জলা মিথ্যা প্রচার! তাহলে ইতিহাস রচনার সময় কি এই তথ্য গুলো সংশোধন করা উচিত ছিলো না? তা যদি না হয় তাহলে মুক্তিযুদ্ধের সত্যিকারের ইতিহাস আমরা কিভাবে পাবো?”

আমার কাতর প্রশ্নে স্মিত হেসে সেই শিক্ষক বলেছিলেন,

“আবেগ নিয়ে কখনো ইতিহাস লেখা যায় না, মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে আমরা এখনো অনেক বেশী আবেগপ্রবন। যেদিন এই আবেগ সম্পূর্ন দূরীভূত হবে, ইতিহাসবিদরা নির্ভয়ে এই নিয়ে প্রশ্ন তুলতে সমর্থ হবেন, দেখো সেদিন ঠিকই এই সব সত্য ইতিহাসের পাতায় স্থান করে নেবে।”

স্বাধীনতার ঘোষনা দেয়া নিয়ে চলমান রাজনৈতিক বিতর্কের কারনে আপাতত চরম হতাশ হলেও, আমি নতুন দিনের প্রত্যাশায় আছি। যেদিন মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে সমস্ত কুতর্কের অবসান হবে, আর এমন একটি ইতিহাস আমরা রচনা করতে সক্ষম হব, যাতে থাকবে প্রতিটি ঘটনার নির্মোহ বিশ্লেষন আর যার নির্ভরযোগ্যতা নিয়ে কোনো পক্ষেরই বিতর্ক করার কোনো অবকাশ থাকবে না।

Advertisements

2 comments

  1. Jono Gono Mono Odhi-nayoko joyo hai/Bharat Bhaggo Bidhata !
    In History Of East Pakistan’s Rabel we get 2- 3 confused data against declairing Independence. Awami Says : it was declaired by Mr. M.A Hannan on 26th March. But BNP says : It was declaired by Major Zia on 26th March. But now Awami has added a new data : It was declaired by Sheikh Mujib himself by E.P.R wireless .May be they want to say, Mr.Shiekh Send the announcement via EPR’s Wireless to Mr M A Hanna to broadcast it directly or By Mr Hannan himself through KALUR GHAT BETAR. But How far i know Mr. Sheikh was arrested on the night of 25th March(actual date can be 26th because he pehaps arrested after 12 am) then how can he sent the records via wirless then?wasnt he in custody of Pakistan’s Military? Whatever he send the announcement or not, it doesnt a fact, because he was the main factor who led East Pakistan to its Independence.Later on, who declaire the announcement of Independence it’s just an official formality, and that person is similar to a RJ because as like BNP says Zia was the SHADHINOTAR GHOSHOK , they stress in this word as like Zia has made our freedom.Mujib was the person who was leading to us to liberation becoz he was the main political figure of Pakistan & in today’s Pakistan who is known as Gaddar, Pakistan dont even know Zia. Zia was only a Military officer who betray with his job due to join Liberation war & who declair the news of Independece on Radio.He was a part of Liberation war & freedom fighters but it is not like that he noticed the imbalance & racial discrimination between 2 parts of Pakistan & was a political party’s leader and was doing possessions, strikes on the roads, nothing like that. why we stress on this word SHADHINOTAR GHOSHOK? We Bangladeshi bangali are still Beakkle becoz any 1 can play with our emotion. Mujib was the leader of Liberation, the whole East Pakistan was united only for Him, all wished a Bengali person in Central Prime Minister post & all voted him for that & when West Pakistan was trying not to give his the post after election then all blast in the roads & wanted to end the Western Reigning History & wanted to become independent from them. & thanks to all Pakistan’s defense person (Basically all were bangali who joined) who joind the war like Major Zia .

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s